শিরোনাম :
সাগরে মাছ নেই হতাশ জেলেরা কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জে তিন প্রতিবন্ধী ও দুই বিধবা পেলো প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর কুষ্টিয়া জেলা ইউনাইটেড অনলাইন প্রেসক্লাবের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গলে করোনায় মৃত্যুঃ দাফন-কাফনে ইকরামুল মুসলিমীন ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল গরীব অসহায়দের মাঝে খাদ্যদ্রব্য বিতরণে প্রশংসনীয় পদক্ষেপ নিলেন পুলিশ সুপার মোঃ নাইমুল হক ঠাকুরগাঁওয়ে পুত্রবধূর আঘাতে শাশুড়ির মৃত্যু ঠাকুরগাঁও সদর পৌরসভার স্থগিত হওয়া ওয়ার্ডটিতে ভোট গ্রহণ চলছে কলাপাড়ার ধুলাসারে বিষপান করে ১ শ্রমিকের মৃত্যু। খানসামায় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত মিরপুর প্রেসক্লাবের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন সভাপতি চঞ্চল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল রাজশাহী মহানগরে ভূয়া (MLM) কোম্পানীর প্রতারনা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ০৪ প্রতারক বন্দীদশা হতে উদ্ধার-৩৭ জন করোনার ২য় ঢেউ মোকাবেলায় সর্বত্র সতর্কাবস্থা গ্রহণে তৎপর মহিপুর থানা পুলিশ মির্জাপুর ইউনিয়ন ০৯নং ওয়ার্ডে নির্বাচন আলোচনা সভা রাজশাহী মেট্রপলিটন পুলিশ ভাইরাস ঠেকাতে মাঠে নামছে ধর্মপাশার সুখাইড় রাজাপুর উত্তর ইউনিয়নে স্বেচ্ছাসেবকলীগ আহবায়ক কমিটি অনুমোদিত সমাজ সেবায় কাউন্সিলর আমজাদ হোসেন শেরে বাংলা পদক পেলেন কুয়াকাটা সৈকতে বালু ভাস্কর্য প্রদর্শনীর উদ্বোধন করলেন ডিআইজি কুয়াকাটায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে মুসলিম এইডের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চিতলমারী বাজার ব্যবসা ব্যবস্থাপনা কমিটির আয়োজনে জাতির পিতার ১০১ তম জন্মশতবার্ষিকী পালন ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে চাইলেন সহযোগিতা হাত বাড়িয়ে দিলেন কলাপাড়া’র ইউএনও কলাপাড়াকে জেলার দাবীতে মানববন্ধন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ খুকনি ইউনিয়ন শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২১ রানীশংকৈলে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা কালীগঞ্জে নজরুল মাষ্টারের বিরুদ্ধে সরকারী গাছ কর্তন সহ বিভিন্ন অভিযোগ কলাপাড়ায় জিএনবি’র উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন মহিপুর থানা পুলিশ ও কুয়াকাটা পৌরসভায় উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনে কলাপাড়া থানা পুলিশের আনন্দ উদযাপন মিশ্রিপাড়ায় সীমা বৌদ্ধ বিহারের জমি দখলমুক্ত করতে রাখাইনদের মানববন্ধন মিশ্রিপাড়ায় সীমা বৌদ্ধ বিহারের জমি দখলমুক্ত করতে রাখাইনদের মানববন্ধন সাভার বাসস্ট্যান্ডে হিজড়া হকার সংঘর্ষ আহত – ১০ ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ করলেন- দুলাল রব্বানী আজীবন মানুষের কল্যানে কাজ করে যাবো- পলক পটুয়াখালী জেলার মহিপুর থানার একটি মাদক বিরোধী সাঁড়াশি অভিযান আটক ০১ কলাপাড়ায় ভুট্টা চাষে বাম্পার ফলন: কৃষকের মুখে হাসি কালের সাক্ষী শিব মন্দিরের বটবৃক্ষ সিঙ্গাপুরের তুয়াস নিহতদের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ৩ লক্ষ হলেও অনুদানে জমা হয়েছে ৬ লক্ষ ৪ হাজার সিংগাপুর ডলারের উপরে রাজধানী বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুৎ চুরি করে অটোরিকশায় চার্জ। ঢাকার দোহারে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত ১ কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জ উপ-নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী বিজয়ী রাত পোহালে ডালবুগঞ্জ ইউপি উপ-নির্বাচন ভোট কেন্দ্রে পুলিশি টহল কলাপাড়ার ডালবুগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন; চলছে শেষ মুহূর্তের প্রচার প্রচারণা নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিস ও বাসায় ভাঙ্গচুর আমি শেষ বয়সে ডালবুগঞ্জ ইউনিয়ন বাসীর পাশে থাকতে চাই, অধ্যক্ষ দেলওয়ার হোসেন শিকদার কলাপাড়ায় নব-নির্বাচিত মেয়রকে সংবর্ধনা রাজশাহী মহানগরীতে গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে লাশ বহনকারী গাড়ীর চাঁদাবাজ দালাল চক্রের সদস্য গ্রেফতার জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি), কর্তৃক ৭০০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আটক- ০১ কেশবপুর পৌর নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন হবে-সিইসি পাবনার চাটমোহরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর দেওয়ার আশ্বাসে ইউপি চেয়ারম্যানের অর্থ আদায়ের অভিযোগ ভালুকায় মোটরসাইকেল ও যাত্রিবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত সাংবাদিক বোরহান হত্যার প্রতিবাদে কু্ষ্টিয়া প্রেসক্লাব কেপিসি’র সমাবেশ ও বিক্ষোভে শেখ হাসিনা সরকারের ক্ষমতার আমলে দেশে ক্রীড়া ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে- এমপি শাওন ভ্রমণ পিপাসুদের অন্যতম আকর্ষণের জায়গা কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত মহিপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত কলাপাড়ায় করোনা টিকার ফ্রি রেজিষ্ট্রেশন করছে রয়েল ব্যাচ ২০০০ কলাপাড়া পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা ৪১৪ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া পৌরসভায় আজ ভোটারদের ব্যাপক উপস্থিতিতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ খাদ্যপণ্যসহ চালের মূল্য বৃদ্ধিতে বঙ্গবন্ধু পেশাজীবী পরিষদের উদ্বেগ প্রকাশ আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি, ভ্যালেন্টাইনস ডে বা ভালোবাসা দিবস। দোহারে বিডি ক্লিন ও ব্লাড ব্যাংকের ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান। কলাপাড়া নির্বাচন উপলক্ষে পটুয়াখালী জেলা পুলিশের ব্রিফিং ভোট কেন্দ্রে সাংবাদিক নির্যাতন-হয়রাণীকে না বলুন রাজশাহী কর ভবনে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও লাইব্রেরীর উদ্বোধন আরেকটি রাজশাহী বাসীর সবার জন্য সৌন্দর্য যোগ হলো সড়ক বাতি সাতক্ষীরা পৌর নির্বাচনে জুম্মার নামাজান্তে নৌকায় ভোট চাইলেন আসাদুজ্জামান বাবু শাহজাদপুরে ১,শ ৫০জন দুস্হ পরিবারের মাঝে কাপড় ও চাদর বিতরণ করলেন প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতা সাতক্ষীরা পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করতে সৈয়দ আমিনুর রহমান বাবু’র নেতৃত্বে গণসংযোগ বরগুনায় পুলিশ সুপার ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট লালমোহনে প্রতিপক্ষের হামলার ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার-৯ মঠবাড়িয়ায় গাঁজা ও ইয়াবা সেবনকারী ৩ যুবক আটক সাতক্ষীরা জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পৌর নির্বাচনের ৩৭ টি ভোট কেন্দ্র পরিদর্শন শীতার্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করলেন চাটখিল উপজেলা প্রেসক্লাব মঠবাড়িয়ায় টিকিকাটা সাঈফী নগর মাদ্রাসায় অভিভাবক সমাবেশ মাদক বিরোধী অভিযান চলছে জেলা পুলিশ যশোরের মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযান চলমান। আইন শৃঙ্খলা সক্ষমতা বাড়া‌তে বাংলাদেশ পুলিশে যুক্ত হচ্ছে দুটি অত্যাধুনিক হেলিকপ্টার সাতক্ষীরায় নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করলেন কাউন্সিলর প্রার্থী রেজাউল সপ্না হত্যার বিচার চাই সপ্নার পরিবার বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চৌহালীর উপজেলার চেয়ারম্যানের করোনার ভ্যাকসিনের টিকা নেওয়ার অভিনয় ভাইরাল। বরগুনায় স্বামীকে খুন, ৮ মাস পর হত্যারহস্য উদঘাটন,স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিক গ্রেফতার জামালপুর পৌর নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের বিজয় নিশ্চিত করার লক্ষে যুবলীগের যৌথ কর্মী সভা অনুষ্ঠিত লালমোহনে শিশু বিয়ের কারণ, প্রভাব ও প্রতিকার নিয়ে এ্যাডভোকেসি সভা সিমা হত‍্যার আসামি কি তাহলে পার পেয়ে যাবে? সাতক্ষীরায় পিতা-মাতার পর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হলেন সাফিয়া পারভীন। হাজারো পুরুষের আত্ম-কাহিনী। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে প্রথম ইভিএম ভোটে প্রথম মেয়র মোখলেসুর রহমান। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে চোরাই মোটরসাইকেলসহ গ্রেফতার ২ হাতিয়ায় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উদ্যোগে,জাহাজমারা শাখায় মতবিনিময় সভা চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিবগঞ্জ ৫৯ বিজিবি’র সীমান্তে হেরোইন ও ফেন্সিডিল উদ্ধার কক্সবাজার বিমানবন্দরে বিমানের ধাক্কায় ২ গরুর মৃত্যু, বড় দুর্ঘটনা থেকে যাত্রীদের রক্ষা Gbc Babu র‍্যাব-৫ রাজশাহী কর্তৃক হেরোইন সহ ০১ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার র‍্যাব-৫, রাজশাহী কর্তৃক হেরোইন সহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

আত্মঘাতী ও আত্মহত্যার অপসংস্কৃতি

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২১

ড. মুফতি হুমায়ুন কবিরসহকারী অধ্যাপক, আরবি বিভাগচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

আত্মহত্যা করা মহা পাপ। আত্মঘাতী আত্মহত্যার একটি প্রকার। মানুষ না বুঝে নিজে নিজেকে হত্যা করে থাকে। অথচ মহান আল্লাহ অপরকে হত্যা করার মত নিজেকে হত্যা করাও অপরাধ সাব্যস্ত করেছেন। বরং অপরকে হত্যা করার চেয়ে আত্মহত্যা করা মহাপাপ। কেননা, মানুষ নিজের প্রাণের মালিক নন। প্রত্যেক প্রাণের মালিক মহান রাব্বুল আলমীন। তিনিই জীবন ও মৃত্যু দান করেন। তিনি সকল মানুষের জানের নিরাপত্তা দিয়েছেন। আত্মহত্যা করা মূসা (আ.)-এর যুগে পাপ থেকে তাওবা করার একটি পদ্ধতি ছিল। বনী ইসরাইল যখন গরু পূজা করে শিরকে লিপ্ত হয়েছিল তখন তাদেরকে তাওবা করার জন্য নিজে নিজেকে হত্যা ও একে অপরকে হত্যা করার জন্য বলা হয়েছিল। তবে এ উম্মতের বৈশিষ্ট্য হলো তারা নিজেকে পাপের তাওবা হিসেবে হত্যা করতে পারবে না। তা তিনি বিভিন্ন আয়াতে কঠোরভাবে নিষেধ করেন।

তিনি মানুষদেরকে দুনিয়াতে নিজেকে হত্যা ও ধ্বংস করা থেকে যেমন নিষেধ করেন তেমনি পরকালিন শাস্তি ও ধ্বংস থেকে সংরক্ষণ করানোর জন্যও নির্দেশ দিয়েছেন। আত্মহত্যা মানুষের জন্য পরকালিন শাস্তি ও জাহান্নামে যাওয়ার কারণ; তাই তা বিভিন্ন আয়াতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

যারা আত্মহত্যা করে বাস্তবে তারা নিজেকে জাহান্নামী বানাতে সন্তুষ্ট। বরং যারা তাকে বৈধ মনে করে তারা তো স্থায়ী জাহান্নামী হয়ে যাবে।

আত্মহত্যা পরিচিতি:

যে কোনো উপায়ে নিজের প্রাণ বের করে ফেলা। বিন বায বলেন, “আত্মহত্যা হলো মানুষ নিজেকে ইচ্ছাকৃতভাবে হত্যা করা যে কোনো উপায়ে। তা হারাম ও কবীরা গুনাহ।” (বিন বায প্রমুখ, ফতাওয়া ইসলামিয়া, খ-৪, পৃ. ৫১৯)।

তা ইসলাম বহির্ভূত কাজ। ইসলাম নিজেকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যেথেও নিষেধ করেন।

আত্মহত্যার কারণ ও ধরণ:

আত্মহত্যার বিভিন্ন কারণ আমরা দেখতে পায়। এক লোক যে কারণে আত্মহত্যা করে আরেক লোক ভিন্ন কারণে আত্মহত্যা করে থাকে। দৈনন্দিন খবরের কাগজ পড়লেই একজন গবেষকের কাছে এ সকল কারণগুলি চিহ্নিত হয়ে যায়। নিম্নে এধরনের কিছু প্রসিদ্ধ কারণ ও ধরণ তুলে ধরা হলো:

১. মানসিক রোগ: মানসিক বিকারগ্রস্থ লোক আত্মহত্যার পথকে বেচে নেয়।

২. শারীরিক রোগ: বিভিন্ন রোগের কষ্ট শয্য করতে না পেরেও মানুষ নিজের জন্য আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়ে থাকে।

৩. অপরকে হত্যা: অপরকে হত্যা করে নিজেকে অপরের হাত থেকে রক্ষা করতে গিয়েও নিজেকে হত্যা করে ফেলে। যেমন উমর (রা.)-এর হত্যাকারি করেছিল।

৪. আঘাতের যন্ত্রণা: অনেকে আঘাতের যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে নিজেকে হত্যা করে ফেলে। যেমন উহুদ যুদ্ধে কাজমান করেছিল।

৫. নেশা পান: অনেক সময় নেশা পানের কারণে মানুষ নিজেকে হত্যা করে ফেলে।

৬. জুয়া খেলা। জুয়া খেলায় যখন হেরে যায় তখন আত্মহত্যা করে।

৭. অভিভাবকের ধমকি ও গালি: অভিভাবকগণ যখন কোনো ধমকি ও হুমকি দেয় তখনও অনেকে না বুঝার কারণে নিজের জন্য আত্মহত্যার পথ বেচে নিয়ে থাকে।

৮. বন্ধুবান্ধবদের সাথে ঝগড়া: পরষ্পর ঝগড়া বিবাদের কারণেও মানুষেরা আত্মহত্যার পথ গ্রহণ করে থাকে।

৯. প্রেম: অনেক সময় বিভিন্ন জনের সাথে প্রেম করে থাকে। ফলে প্রেমে যখন ব্যর্থ হয়ে যায়, তখন আত্মহত্যার পথ বেচে নেয়।

১০. লজ্জা: অনেক সময় যখন কোনো পাপ করে, তখন লজ্জার কারণে মানুষ নিজের জন্য আত্মহত্যার পথ বেচে নেয়।

১১. পেরেশান: বিভিন্ন টেনশন ও পেরেশানীর কারণেও নিজের জন্য আত্মহত্যার পথ বেচে নেয়।

১২. স্বামীর সাথে অভিমান: স্বামীর প্রতি অভিমান করে নারীরা হত্যা করে।

১৩. টাকা পয়সার লোভ: যেমন টুইন টাওয়ারে হামলাকারী। তেমনি যারা নিজের কিডনী ইত্যাদি বিক্রি করে ফেলে।

১৫. ভুলে আত্মহত্যা: ভুলে গাড়ি চালাতে গিয়ে নিজে নিজেকে হত্যা করে।

১৬. প্ররোচিত হয়ে আত্মঘাতী আক্রমণের মাধ্যমে নিজেকে হত্যা করে।

এভাবে বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন উপায়ে মানুষ আত্মহত্যা করে থাকে। কখনো অস্ত্র দিয়ে নিজেকে আঘাত করে, কখনো ফ্যানে বা ছাদে বা অন্য কোনো কিছুর উপর লটকিয়ে ফাঁসি খেয়ে, বিষপান করে, গাড়ি বা রেলের চাকায় ফেলে, ঘুমের ঔষধ খেয়ে, ছাদের উপর থেকে লাফ দিয়ে, আত্মঘাতী বোমা শরীরে বেধে হামলা করার মাধ্যমে, গাড়ি থেকে লাফ দিয়ে ও  নিজে নিজেকে ছুরিকাঘাত করে আত্মহত্যা করে।

আত্মহত্যার বিধান:

ভুলে আত্মহত্যার শাস্তি হবে না। তবে ইচ্ছাকৃতভাবে যদি আত্মহত্যা করে, তখন তা হারাম ও এর শাস্তি জাহান্নাম। পরকালে তাকে শাস্তি দেওয়া হবে।

মহান আল্লাহ আরও ইরশাদ করেন,

“আর যে কেউ স্বেচ্ছায় কোন মুমিনকে হত্যা করবে তার শাস্তি হবে জাহান্নাম, তন্মধ্যে সে সদা অবস্থান করবে এবং আল্লাহ তার প্রতি ক্রুদ্ধ ও তাকে অভিশপ্ত করেন এবং তার জন্যে ভীষণ শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছেন।” (নিসা, আয়াত:৯৩)। এখানে নিজেকে হত্যা করাও রয়েছে।

বাহরুর রায়েকে এসেছে- “ফতওয়ায়ে কাযীখানে কিতাবুল ওয়াকফে এসেছে- দুই ব্যক্তি এক নিজেকে হত্যা করেছে আর দ্বিতীয়জন অপরকে হত্যা করেছে, তখন যে নিজেকে হত্যা করেছে তাতে পাপ বেশি হবে।” (বাহরুর রায়েক, খ-২, পৃ.২১৫)। কেননা, অপরকে হত্যা করলে আপোষের মাধ্যমে তাওবা করার সুযোগ থাকে। কিন্তু আত্মহত্যাকারির জন্য তাওবার কোনো পথ থাকে না।

আত্মহত্যার শাস্তি:

আত্মহত্যাকারি নিজেকে যে উপায়ে হত্যা করবে তাকে সেভাবে জাহান্নামে শাস্তি দেওয়া হবে। বুখারীতে এসেছে-

“হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি নবী (সা.) থেকে বর্ণনা করেন, যে ব্যক্তি পাহাড় থেকে লাফ দিয়ে নিজেকে হত্যা করবে সে জাহান্নামে লাফ দিতে থাকবে স্থায়ীভাবে আর যে ব্যক্তি বিষপানে আত্মহত্যা করবে তার বিষ তার হাতে থাকবে জাহান্নামে সে স্থায়ীভাবে থাকবে। আর যে ব্যক্তি নিজেকে ছুরিকাঘাত দ্বারা হত্যা করবে তার ছুরি তার হাতে থাকবে তা দ্বারা সে তার পেটে জাহান্নামে আঘাত করবে, তাতে সে স্থায়ীভাবে থাকবে।” (বুখারী, হাদিছ না:৫৭৭৮)।

আত্মহত্যাকারি কি স্থায়ী জাহান্নামী?

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের বিশ্বাস হলো যারা তাওহীদ নিয়ে দুনিয়া থেকে যাবে তারা স্থায়ী জাহান্নামী হবে না। যে হাদিছে আত্মহত্যাকারির জন্য স্থায়ী জাহান্নামের কথা রয়েছে, তার ব্যাখ্যা হলো তা ওই লোকের জন্য যে তাকে হালাল মনে করেছে। তখন তো সে কাফির হয়ে যাবে।

তাই আত্মহত্যাকারীকে যতদিন ইচ্ছা আল্লাহ শাস্তি দিয়ে পরে তাওহীদের কারণে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন। তবে খারেজী ও মুতাজিলাদের মতে তারা স্থায়ী জাহান্নামী হবে।

আত্মহত্যাকারির জানাযা ও দাফন:

যারা আত্মহত্যা করবে তাদেরকে জানাযা পড়া যাবে। তবে সম্ভ্রান্ত লোক ও আলিমগণ তাতে শরীক না হওয়া উত্তম।

মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বাতে এসেছে-“হযরত ইবরাহীম বলেন, যারা আত্মহত্যা করবে তাদের উপর নামাজ পড়া যাবে। তেমনি জিনার কারণে বাচ্চা প্রসব করতে গিয়ে যে সকল নেফাসের মহিলা মারা যাবে তেমনি যে ব্যক্তি মদ পানের কারণে মারা যাবে।” (ইব্ন আবি শায়বা, হাদিছ না:১১৯৮৪)।

মুসলিমে এসেছে- “হযরত জাবির ইবনে সামুরা থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সা.)-এর দরবারে এক লোক হাযির করা হলো যে তীরের ফলা দ্বারা নিজেকে হত্যা করেছে তখন তিনি তার উপর নামাজ পড়েননি।” (সহিহ মুসলিম, হাদিছ না:৯৭৮)।

তাই আমির, আলিম ও সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিবর্গ তার জানাযায় শরীক হওয়া উচিত নয়।

কাফিরদের আত্মহত্যা:

কাফিরদের জন্য আত্মহত্যা নিষেধ। কেননা, সকল কাফিরদেরকে সমান শাস্তি দেওয়া হবে না। বরং তাদেরকে তাদের পাপ অনুপাতে শাস্তি দেওয়া হবে। তাই আত্মহত্যা কূফরির উপর পৃথক পাপ; তাই তার জন্য তাকে পৃথক শাস্তি দেওয়া হবে।

অনশন ধর্মঘট:

কোনো কারণে না খেয়ে মারা যাওয়া ইসলাম সমর্থন করে না। আমাদের দেশে অনেকে দাবী আদায়ের জন্য না খেয়ে অবস্থান করে। তা ইসলাম সমর্থিত নয়।

মুহীতে বুরহানী এসেছে- “যে ব্যক্তি খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকল ফলে মরে গেল, তখন তার জন্য জাহান্নামে প্রবেশ ওয়াজিব হয়ে যাবে। কেননা, সে নিজেকে ইচ্ছাকৃতভাবে হত্যা করল। তা ওই ব্যক্তির ন্যায় যে ছুরিকাঘাত দ্বারা নিজেকে হত্যা করল।” (আল মুহীতুল বুরহানী, খ-৫, পৃ.৩৫৭)।

দ্রুত ড্রাইভিং কি আত্মহত্যা?

দ্রুত গাড়ি চালানোর কারণে অনেক সময় মানুষ দূঘটনার কবলে পড়ে মরে যায় তা আত্মহত্যা নয়। কেননা, মরার জন্য দ্রুত গাড়ি চালাইনা।

কারও নির্দেশে আত্মহত্যা:

 কারও নির্দেশে আত্মহত্যা করাও হারাম। বুখারীতে বর্ণিত, “হযরত আলি (রা.) থেকে বর্ণিত। নবী (সা.) এক দলকে পাঠালেন তাদের আমির বানালেন এক ব্যক্তিতে সে আগুন জ্বালাল, আর বলল তোমরা তাতে প্রবেশ কর, তখন তারা তাতে প্রবেশ করতে চাইল। আরেকদল বলল, আমরা আগুন থেকেই পালিয়ে আসলাম। তখন তারা তা নবী (সা.) কে সংবাদ দিলেন। তিনি যারা তা ইচ্ছা করেছে তাদেরকে বললেন, তারা যদি তাতে প্রবেশ করত তারা তাতে কিয়ামত পর্যন্ত থাকত আর অপর দলকে বলল পাপে কারও আনুগত্য নেই। নিশ্চয় আনুগত্য কল্যাণে।” (বুখারী, হাদিছ না:৭২৫৭)।

এ থেকে বুঝা যায় আত্মহত্যা যেহেতু পাপ কাজ; তাই তাতে কারও আনুগত্য করা যাবে না।

 

আত্মহত্যার জন্য সহযোগিতা করা হারাম:

আত্মহত্যার জন্য সহযোগিতা করা যাবে না। কেউ যদি করে তখন বৈধ হবে না।

যদি কোনো ব্যক্তি অপরকে জোর করে সে নিজেকে হত্যা করার জন্য। যেমন বলল, তুমি নিজেকে হত্যা কর নতুবা আমি তোমাকে হত্যা করব তখন সে নিজেকে হত্যা করতে পারবে না। নতুবা সে আত্মহত্যাকারী ও পাপী হবে।

পরিশেষে বলা যায়, আত্মঘাতী ও আত্মহত্যা পরকালে জাহান্নামের কারণ। অপরকে হত্যা করার চেয়ে নিজেকে হত্যা করার শাস্তি বেশি। তাই ইসলামের আত্মহত্যার কোনো বৈধ পথ নেই। তাই নবী (সা.) আত্মহত্যাকারীদের জন্য কঠোর শাস্তির কথা ব্যক্ত করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By Bangla Webs