1. info@matrijagat.com : matrijagat : Daly matrijagat
  2. doynikmatrijagat@gmail.com : matrijagat1 :
  3. banglahost.net@gmail.com : rahad :
বাউফলের ডাঙায় কুমির জলে বাঘ - দৈনিক মাতৃজগত
নোটিশ:
বহুল জনপ্রিয় জাতীয় দৈনিক মাতৃজগত পত্রিকা ও জনপ্রিয় আইপি টেলিভিশন মাতৃজগত টিভিতে সংবাদকর্মী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। সারা বাংলাদেশে বিভিন্ন জেলায়, উপজেলায়, জেলা ব্যুরো প্রধান ও বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানে কাজ আগ্রহী প্রার্থীগণ সিভি পাঠাতে পারেন। ইমেইল: doynikmatrijagat@gmail.com যোগাযোগ নাম্বার: 01712-608880, 01613-060606
শিরোনাম :
মরহুম সাংবাদিক ও সম্পাদক এম শামসুল হুদার স্বরণে”চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স পরিষদ” গঠিত। লালমোহনের মেঘনা ও তেতুলিয়ায় নিষিদ্ধ সময়ে ও নিধন হচ্ছে ডিমওলা মা ইলিশ। মঠবাড়িয়ায় অবিরাম বৃষ্টিতে জন দুর্ভোগ, থমকে গেছে জনজীবন। মোগরাপাড়া আওয়ামী পরিবার দ্বিধাদ্বন্দ্ব ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করবে। বাবুখালীতে জমি নিয়ে বিরোধ, উভয় পক্ষের ১১ জন আহত। রাজধানীতে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত। সোনারগাঁয়ে মেঘনা নদী থেকে ১ লাখ ৫ হাজার মিটার জাল ও ইলিশ মাছ জব্দ। 20 মণ্ডপে আটশত দুস্থ পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী উপহার খালেদা জিয়াই হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রকৃত বন্ধু– খোরশেদ বগুড়া শেরপুরে ইউএনওর অফিস সহকারির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ! দেশে করোনা আরও ১৪ রোগীর মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৮৬।

বাউফলের ডাঙায় কুমির জলে বাঘ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৭ জুলাই, ২০২০
  • ৪২০ বার

প্রতিনিধি বাউফল: পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার ধুলিয়া ও কেশবপুর ইউনিয়নরে পাশ দিয়ে বয়ে গেছে খরস্রােতা তেতুলিয়া নদী। এ দুই ইউনিয়নের সহস্রাধিক জেলে ও শতাধিক পরিবারের ‘জলে কুমির, ডাঙ্গায় বাঘের সঙ্গে বাস’ করার মতো অবস্থা হয়েছে। ইলিশের অভয়াশ্রম তেতুলিয়া নদীতে মাছ ধরতে নামার আগে আওয়ামীলীগের স্থানীয় নেতাদের নির্ধারিত হারে দিতে হয় চাঁদা। অপরদিকে ভূমিতে বসবাস করা পরিবারগুলোর দিনরাত কাটাতে হয় চোর-ডাকাতের আতংকে। প্রতিরাতে গোয়ালের গরু কিম্বা বসতবাড়িতে চুরির হচ্ছে তাদের। এর সঙ্গে জড়িতরাও ক্ষমতাসীন দলের লোক হওয়ায় ভূক্তভোগীরা কোন প্রতিবাদ করার সাহসটুকুও পাচ্ছেন না। সরেজমিনে জানা গেছে, কেশবপুর ও ধুলিয়া ইউনিয়নের নদী ভাঙ্গনী পরিবারগুলোর অধীকাংশদেরই পেশা কৃষি ও নদীতে মাছ ধরা। গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নদী ইলিশের অভয়শ্রম তেতুলিয়া নদীতে জাল ফেলতে হলে জলদস্যু মহসিন বাহিনীকে নিয়মিত মাসোয়ারা দিতে হয় জেলেদের। একসময়ের বিএনপির প্রভাবশালী নেতা শাহজাহান তেতুলিয়ার তীরে তার বাড়ি। নিজের অপকর্ম ঢাকতে মাছের ব্যবসায় তিনি নদীতে জেলেদের দাদন ও ট্রলার দেন। জেলেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে নেপথ্যে থেকে শাহজাহান তেতুলিয়ার আতংক জলদস্যু মহসিন বাহিনীর পৃষ্ঠপোষকতা করেন। জলদস্যুদের মাসোয়ারা না দিলে জেলেদের অপহরণ, নদীপথে মালবাহী ট্রলার ও তীরের বসতবাড়িতে ডাকাতি, কৃষকের গোয়ালের গরু-মহিষ চুরি এখন নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। এক মৌসুম নদীতে মাছ ধরার জন্য প্রতিটি জেলে নৌকাকে প্রকার ভেদে ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা করে দিতে হয় মহসিন বাহিনীকে। টাকা দেওয়া জেলে নৌকাগুলো লালসালু টানিয়ে নির্ভিগ্নে নদীতে মাছ শিকারের নিশ্চয়তা পায়। যে নৌকায় লাল সালু টানানো থাকেনা সেসব জেলেদের ওপর নেমে আসে মহসিন বাহিনীর নির্যাতন। এদিকে প্রতিনিয়তই চলছে কৃষকের গরু, মহিষ চুরি ও বসতবাড়িতে ডাকাতির ঘটনা। গবাদী পশু চুরি হওয়ায় সর্বস্ব হারাচ্ছেন কৃষকেরা। ইতিমধ্যে প্রায় তিন শতাধিক গরু-মহিষ চুরি হয়েছে বলে ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন। স্থানীয় কৃষকের অভিযোগ, কেশবপুর ইউনিয়ন এবং তেতুলিয়ার অপর তীর ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার দৃষ্কৃতিকারীরা যোগসাজস করে গবাদীপশু চুরি করছে। চোর হাতেনাতে ধরা পড়লে ইউপি চেয়ারম্যান তার সহযোগী শাহজাহানকে দিয়ে সালিশের নামে প্রহসন করে চোরের জরিমানা টাকা আত্মাসাত করছেন। শাহজাহানের ঢাকা ও চট্রগ্রামে কয়েকটি মাছের আড়ত ও ৭টি ট্রলার রয়েছে। বাউফলের তেতুলিয়ার তীরে তার মাছের আড়তঘর না থাকলেও হতদরিদ্র জেলেদের দাদন দিয়ে জিম্মি করে রেখেছেন। নদীতে ইলিশ শিকার করা জেলেদের নিয়ন্ত্রনে রাখতে জলদস্যু মহসিন বাহিনীকে পৃষ্ঠপোষকতা করছেন তিনি। জেলেদের একদিকে দাদন অপরদিকে মাসোয়ারা দিতে হচ্ছে । চরের কৃষকরা জানান, লালচরের ঘাস খেয়ে তাদের ২ থেকে তিন হাজার গরু-মহিষ বাঁচে। ওই ঘাস শাহজাহানের মাধ্যমে চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন ভোলার চরকোড়ালিয়ার মেম্বর আলমগীরের কাছে ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। মেম্বর আলমগীর হোসেন বলেন, ঘাস বিক্রি বাবদ চেয়ারম্যান ৮০ হাজার টাকা নিয়েছে তার কাছ থেকে। ওই এলাকার মুদী দোকানি ছালাম জানান, রফিক ও রাসেল নদীপথে জুয়ার আসর বসিয়ে যাত্রীদের হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ধুলিয়া ও কেশবপুরে চুরি-ডাকাতির নেপথ্যে এদুজন বলে গ্রামবাসী অভিযোগ করেছে। কেশবপুর বাজারে দুজনেই অট্রালিকা নির্মান করেছে। তারা চেয়ারম্যানের সহযাগী হওয়ায় ভয়ে কেউ মুখ খুলছেন না। বাউফল থানা পুলিশ রফিক ও রাসেলকে পৌরশহরের স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি মামলায় গ্রেফতার করার পরও অদৃশ্য কারনে ছেড়ে দেয়। রফিক কয়েকমাস কারাভোগের পর আদালতের মাধ্যমে কারামুক্ত হয়। এ বিষয়ে শাহজাহান বলেন, তিনি ব্যবসা করেন, তবে কোন অপরাধের সাথে সে জড়িত নয়। কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভলু বলেন, তিনি কোন অপরাধ কিংবা জণস্বার্থ বিঘিœত কোন কর্মের সাথে জড়িত নয়, মেম্বর শাহজাহান আগে বিএনপি করতেন এখন তার সাথে দল করেন। এসব মিথ্য ও প্রতিপক্ষের কারসাজি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
অনুমতি ছাড়া লেখা ও ছবি অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By matrijagat.com